Logo

শায়েস্তাগঞ্জে নিহত ৬ জনের লাশ হস্তান্তর : সহায়তা প্রদান

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
জাগো নিউজ : সোমবার, আগস্ট ১৬, ২০২১

image_pdfimage_print

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে কাভার্ড ভ্যান ও সিএনজি অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে ৬ জন নিহত হয়েছেন।

সোমবার সকাল সাড়ে ৯ টায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নছরতপুর গেইট সংলগ্ন স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার পর পিকআপ ভ্যানের চালক পালিয়ে গেছে। তবে পিকআপ ভ্যানটি হাইওয়ে পুলিশ আটক করেছে। নিহতদের লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। এদিকে নিহতদের প্রতিটি পরিবারকে জেলা প্রশাসন থেকে নগদ অর্থ ও চাল সহায়তা দেয়া হয়েছে।

শায়েস্তাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অজয় চন্দ্র দেব জানান, শায়েস্তাগঞ্জ থেকে অলিপুরগামী একটি সিএনজি অটোরিকশা নছরতপুর এলাকায় পৌছলে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা একটি ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ বাধে। এতে অটোরিকশাটি দুমড়ে মুছড়ে যায়। ঘটনাস্থলেই নিহত হন ৬ জন অটোরিকশা যাত্রী।

হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান জানান, নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে তাৎক্ষনিক ২০ হাজার করে টাকা ও ৩০ কেজি করে চাল দেয়া হয়েছে। এগুলো চুনারুঘাট উপজেলায় প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়া তাদের লাশ পরিবহনের জন্য সমাজসেবা বিভাগ থেকে ২ হাজার করে টাকা দেয়া হয়েছে। আর আহত একজন সিলেটে চিকিৎসাধীন আছেন। তার চিকিৎসারও খোঁজখবর রাখা হচ্ছে। তার চিকিৎসার বিষয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ^াস দেন। তিনি বলেন, নিহতদের কর্মস্থল প্রাণ আরএফএল কোম্পানীতে যোগাযোগ করা হয়েছে। সেখান থেকেও তাদের পরিবারকে সহযোগিতা করা যায় কি-না সে চেষ্টা করা হচ্ছে। জেলা প্রশাসক বলেন, পুলিশ আবেদন করেছে ময়নাতদন্ত ছাড়া লাশ হস্তান্তরের জন্য। এর প্রেক্ষিতে সে অনুমতি দেয়া হয়েছে।

পুলিশ জানায়, শায়েস্তাগঞ্জ থেকে অলিপুরগামী একটি সিএনজি অটোরিকশা (হবিগঞ্জ-থ-১১-৫৬৩০) নছরতপুর নামক স্থানে পৌছলে সিলেটমুখী একটি কাভার্ড ভ্যানের সাথে (চট্টমোট্রো-ট-১১৪৫৯৩) মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে সিএনজি অটোরিকশাটি সম্পূর্ণ দুমড়ে মুচড়ে যায়। দুর্ঘটনায় অটোরিকশার চালক ও তার স্ত্রীসহ ৬ জন ঘটনাস্থলেই মারা যান। এর মধ্যে দুইজন মহিলা ও চারজন পুরুষ। খবর পেয়ে শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা নিহতদের লাশ উদ্ধার করে সদর আধুনিক হাসপাতালে পাঠায়। নিহতরা হচ্ছেন শায়েস্তাগঞ্জের বহরমপুরের আনফর উল্লাহর ছেলে মো. আলাউদ্দিন, চুনারুঘাটের শ্রীবাউড়ের আবুল হোসেনের ছেলে সিএনজি অটোরিকশা চালক আব্দুল আহাদ, তার স্ত্রী হনুফা বেগম, একই গ্রামের সফর আলীর ছেলে মো. স্বপন, আজবর আলীর স্ত্রী রাহেলা বেগম ও ফান্ডাইল গ্রামের আব্দুল্লাহ মিয়ার ছেলে সোহাগ মিয়া।

নিহত স্বপনের ভাই আলমগীর হোসেন হাসপাতালে বিলাপ করতে করতে জানান, তার ভাই প্রাণ আরএফএল কোম্পানীতে শ্রমিকের কাজ করেন। সোমবার সকালে কর্মস্থলে যাওয়ার পথে দুর্ঘটনায় মারা যান।

শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানার এসআই মো. মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, হাসপাতালে ৬টি লাশের পরিচয় সনাক্ত করে তারা পরিবারগুলোর সাথে যোগাযোগ করেন। স্বজনরা এসে লাশ বুঝে নিচ্ছেন। নিহতদের পরিবারগুলোর আবেদনের প্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়া লাশ হস্তান্তর করা হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

অন্যান্য সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com
x
error: কপি করা নিষেধ !
x
error: কপি করা নিষেধ !