Logo
শিরোনাম :
নবীগঞ্জে শিক্ষক সমিতির এক নেতার বিরুদ্ধে কাউন্সিলর প্রার্থীর টাকা নেয়ার অভিযোগ হবিগঞ্জে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর পেলো ৩২৫টি পরিবার নবীগঞ্জে ৭ কেজি গাজাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নবীগঞ্জে ইয়াওর মিয়া চৌধুরী স্মরণে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জে যুবলীগের চেয়ারম্যান ও সম্পাদকের রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল নবীগঞ্জে ভোর রাতে রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার : পরিবারের দাবী পরিকল্পিত হত্যা ! নবীগঞ্জে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত  সুনামগঞ্জে বাসের ধাক্কায় শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু ধর্মপাশায় হয়রানি ও গ্রেফতার বন্ধে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা প্রথমে টিকা পাবেন স্বাস্থ্যকর্মী পুলিশ ও সাংবাদিকরা

শফীকে হত্যার অভিযোগ : মামুনুলসহ ৩৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

ন্যাশনাল ডেস্ক / ২০৮ বার পঠিত
জাগো নিউজ : বৃহস্পতিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০২০

হেফাজতে ইসলামের সাবেক আমির আহমদ শফীর মৃত্যুর ঘটনায় ৩৬ জনের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

আহমেদ শফীর শ্যালক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন হত্যার অভিযোগ এনে এই মামলা দায়ের করেছেন। আহমদ শফী মারা যাওয়ার প্রায় তিন মাস পর এই মামলা দায়ের করা হলো। চলতি বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর মারা যান তিনি। হেফাজতে ইসলামের সাবেক নেতা মোহাম্মদ ফয়জুল্লাহ বলেন, চট্টগ্রামের জেলা আদালতে এই মামলা দায়ের করা হয়েছে। পিবিআইকে এক মাসের মধ্যে এই মামলার তদন্ত করে রিপোর্ট জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। অজ্ঞাতনামা ৩৬ জনের বিরুদ্ধে এই মামলা করা হয়। এদের মধ্যে হেফাজতে ইসলামের বর্তমান যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকসহ কয়েক জনের সুনির্দিষ্ট নাম দেয়া হয়েছে। চলতি বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। এর আগে অসুস্থ অবস্থায় তাকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় আনা হয়। এর আগের দিন, অর্থাৎ ১৭ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার রাতে টানা দু’দিনের বিক্ষোভের জেরে হাটহাজারী মাদ্রাসার শুরা কমিটির সভায় ওই মাদ্রাসার পরিচালকের পদ থেকে সরে দাঁড়ান আহমদ শফী।

তার পরিবারের সদস্যরা এর আগে বিবিসিকে জানিয়েছিলেন যে, বৃহস্পতিবার গভীর রাতেই তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়েছিলো।

তিনি ডায়াবেটিসসহ বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন।  ২০১৩ সালে ঢাকায় শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলামের এক বিশাল সমাবেশের আয়োজন করে আলোচনায় এসেছিলেন আহমদ শফী। আহমদ শফী জন্মগ্রহণ করেছিলেন ১৯৩০ সালে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায়। তিনি হাটহাজারী মাদ্রাসা ছাড়াও ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ মাদ্রাসায় পড়ালেখা শেষ করে ফিরে এসে হাটহাজারী মাদ্রাসাতেই শিক্ষক হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন।

দীর্ঘদিন যাবত দেশের কওমি মাদ্রাসাগুলোর নেতৃত্ব দিয়ে আসছিলেন তিনি এবং বাংলাদেশ কওমি মাদ্রাসা বোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের (বেফাক) সভাপতিরও দায়িত্ব পালন করছিলেন।


অন্যান্য সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com
error: কপি করা নিষেধ !
error: কপি করা নিষেধ !