Logo
শিরোনাম :
নবীগঞ্জে চা-শ্রমিকদের মানববন্ধন শোক দিবসে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী বিতরণ হ্যাকারদের কবলে জাগো নিউজের ফেসবুক পেইজ : বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান বাউসা ইউনিয়ন পরিষদকে সৌদি দূতাবাস বানিয়ে অভিনব প্রতারণা ॥ আটক ৩ বাহুবলে গাছ খাওয়ায় ছাগল আটক, এমপি কল দেয়ার পরও ছাড়েনি পুলিশ কানাডায় সড়ক দুর্ঘটনায় বীর মুক্তিযোদ্ধা সুরঞ্জন দাশ স্ত্রীসহ নিহত গ্রিসে বাংলাদেশ দূতাবাসে বঙ্গমাতা ও শেখ কামাল এর জন্মবার্ষিকী পালন নবীগঞ্জে মায়ের স্বপ্ন পূরণে হেলিকপ্টারে চড়ে বরের বাড়ি গেলেন সুরভী খোঁজ মিলছে না সিলেট ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সভাপতির এবার মাল্টার ভিসা মিলবে ঢাকা থেকেই!

নবীগঞ্জের নোয়াগাঁও গ্রামে তাণ্ডব : মুকুলসহ ৯ আসামীর জামিন নামঞ্জুর

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
জাগো নিউজ : রবিবার, জুন ৬, ২০২১

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার পানিউমদা ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামে সাতাইহাল ৬ মৌজা কর্তৃক অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের মামলার মূলহোতা গজনাইপুর ইউনিয়নের বরখাস্তকৃত চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুলসহ ৯ আসামীর জামিন নামঞ্জুর করেছেন আদালত।

রবিবার দুপুরে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুরুল হুদা চৌধুরীর আদালত জামিন নামঞ্জুর করেন।

 

জানা যায়, গত (৩০ মে) সাতাইহাল ৬ মৌজার লোকজন কর্তৃক পানিউমদা ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট চালায়। এতে ১৩টি ঘর-বাড়ি আগুণে পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

প্রায় কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়। এঘটনায় ১ জুন নোয়াগাঁও গ্রামের আব্দুস শহীদের ছেলে জামাল হোসাইন বাদী হয়ে সাতাইহাল গ্রামের নুর উদ্দিন, গজনাইপুর ইউনিয়নের বরখাস্তকৃত চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের অব্যাহতিপ্রাপ্ত সভাপতি ইমদাদুর রহমান মুকুলসহ ৪৭জনের নাম উল্লেখ করে ও ২০০-২৫০ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে নবীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর মূলহোতা ইমদাদুর রহমান মুকুল আত্মগোপনে চলে যান। পরে হবিগঞ্জ থেকে অন্য জেলায় পালিয়ে আত্মগোপনের চেষ্টা করলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ইমদাদুর রহমান মুকুলকে বাহুবল-হবিগঞ্জ সড়কের মশাজান ব্রীজ এলাকায় থেকে গ্রেফতার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে এ মামলায় মুকুলসহ ৯ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

রবিবার দুপুরে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুরুল হুদা চৌধুরীর ভার্চুয়াল আদালতে নোয়াগাঁও গ্রামের অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের মামলায় আসামী মুকুলসহ ৯ জনের জামিন আবেদন করা হয়। জামিন শুনানিতে বাদী পক্ষের আইনজীবি ছিলেন এডভোকেট মোঃ নুরুজ্জামান। আসামী পক্ষের আইনজীবি ছিলেন এডভোকেট আবুল ফজল, এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী, এডভোকেট সুলতান মাহমুদ। দীর্ঘ শুনানি শেষে বাদী পক্ষের আইনজীবির বক্তব্যে সন্তুষ্ট হয়ে ও পত্র-পত্রিকা,ঘটনার ছবি-ভিডিও পর্যালোচনা করে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুরুল হুদা চৌধুরী আসামী মুকুলসহ ৯ জনের জামিন নামঞ্জুর করেন।

এ ব্যাপারে বাদী পক্ষের আইনজীবি এডভোকেট মোঃ নুরুজ্জামান বলেন, ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ ও পত্র-পত্রিকা,ছবি-ভিডিও আদালতে উপস্থাপন করি । বিজ্ঞ আদালত সমস্ত ঘটনার উপর ভিত্তি করে আসামীদের জামিন না মঞ্জুর করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

অন্যান্য সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com
x
error: কপি করা নিষেধ !
x
error: কপি করা নিষেধ !