Logo
শিরোনাম :
নবীগঞ্জে চা-শ্রমিকদের মানববন্ধন শোক দিবসে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী বিতরণ হ্যাকারদের কবলে জাগো নিউজের ফেসবুক পেইজ : বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান বাউসা ইউনিয়ন পরিষদকে সৌদি দূতাবাস বানিয়ে অভিনব প্রতারণা ॥ আটক ৩ বাহুবলে গাছ খাওয়ায় ছাগল আটক, এমপি কল দেয়ার পরও ছাড়েনি পুলিশ কানাডায় সড়ক দুর্ঘটনায় বীর মুক্তিযোদ্ধা সুরঞ্জন দাশ স্ত্রীসহ নিহত গ্রিসে বাংলাদেশ দূতাবাসে বঙ্গমাতা ও শেখ কামাল এর জন্মবার্ষিকী পালন নবীগঞ্জে মায়ের স্বপ্ন পূরণে হেলিকপ্টারে চড়ে বরের বাড়ি গেলেন সুরভী খোঁজ মিলছে না সিলেট ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সভাপতির এবার মাল্টার ভিসা মিলবে ঢাকা থেকেই!

শুভ জন্মদিন রকস্টার আইয়ুব বাচ্চু

বিনোদন ডেস্ক
জাগো নিউজ : রবিবার, আগস্ট ১৬, ২০২০

কিংবদন্তি গিটারিস্ট ও ব্যান্ড শিল্পী প্রয়াত আইয়ুব বাচ্চুর জন্মদিন আজ। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে তিনি নিজেই ছিলেন একটি প্রতিষ্ঠান। গুণী এই শিল্পী সংগীত জীবনের দীর্ঘ চার দশকে অসংখ্য হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া গান উপহার দিয়েছেন শ্রোতাদের।

আইয়ুব বাচ্চুর জন্ম ১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট চট্টগ্রামে। বাংলাদেশের ব্যান্ডসংগীতের এই শিরোমণি তার প্রথম গান প্রকাশ করেন ‘হারানো বিকেলের গল্প’ শিরোনামে। গানটির কথা লিখেছিলেন শহীদ মাহমুদ জঙ্গী। ২০১৮ সালের ১৮ অক্টোবর সকালে অগণিত ভক্তদের কাঁদিয়ে পৃথিবী থেকে বিদায় নেন সবার পছন্দের এই মানুষটি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল মাত্র ৫৬ বছর।

আইয়ুব বাচ্চুর অসংখ্য জনপ্রিয় গানের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- ‘সেই তুমি কেন এতো অচেনা হলে’, ‘এক আকাশের তারা তুই একা গুনিস না’, ‘এখন অনেক রাত’, ‘উড়াল দেবো আকাশে’, ‘আমি বারো মাস তোমায় ভালোবাসি’, ‘হাসতে দেখো গাইতে দেখো, ‘এই রূপালি গিটার ফেলে একদিন…’।

বাচ্চু প্রথম একক অ্যালবাম ‘রক্তগোলাপ’ প্রকাশিত হয় ১৯৮৬ সালে। তেমন একটা সাফল্য পায়নি। আইয়ুব বাচ্চু ১৯৭৮ সালে যোগ দেন ‘ফিলিংস’ ব্যান্ডে। এরপর ১৯৮০ সালে ‘সোলস’-এর সঙ্গে শুরু হয় তার পথচলা। প্রায় এক দশক এই ব্যান্ডের সঙ্গেই ছিলেন তিনি। ১৯৯১ সালের ৫ এপ্রিল গড়ে তোলেন নতুন ব্যান্ড ‘এলআরবি’। এলআরবির প্রথম অ্যালবাম প্রকাশিত হয় ১৯৯২ সালে।

বাংলা ব্যান্ড জগতের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও সম্মানিত ব্যক্তিত্বদের একজন আইয়ুব বাচ্চু মঞ্চ পরিবেশনায় ছিলেন অপ্রতিদ্বন্দ্বী। শ্রোতা-ভক্তদের কাছে ‘এবি’ নামে পরিচিত এই গুণীশিল্পীর ডাকনাম রবিন।

আইয়ুব বাচ্চুর সফলতার শুরু তার দ্বিতীয় একক অ্যালবাম ‘ময়না’ (১৯৮৮) দিয়ে। এরপর ১৯৯১ সালে বাচ্চু ‘এলআরবি’ ব্যান্ড গঠন করেন। এই ব্যান্ডের সঙ্গে তার প্রথম ব্যান্ড অ্যালবাম ‘এলআরবি’ প্রকাশিত হয় ১৯৯২ সালে। এটি বাংলাদেশের প্রথম দ্বৈত অ্যালবাম। এই অ্যালবামের ‘শেষ চিঠি কেমন এমন চিঠি’, ‘ঘুম ভাঙ্গা শহরে’, ‘হকার’ গানগুলো জনপ্রিয়তা লাভ করেছিলো। আইয়ুব বাচ্চুর সফলতার শুরু তার দ্বিতীয় একক অ্যালবাম ‘ময়না’ (১৯৮৮) দিয়ে।

১৯৯৩ ও ১৯৯৪ সালে তার দ্বিতীয় ও তৃতীয় ব্যান্ড অ্যালবাম ‘সুখ’ ও ‘তবুও’ বের হয়। ‘সুখ’ অ্যালবামের ‘সুখ’, ‘চলো বদলে যাই’, ‘রূপালি গিটার’, ‘গতকাল রাতে’ পুরো দেশে আলোড়ন তৈরি করে। এর মধ্যে ‘চলো বদলে যাই’ গানটি বাংলা সঙ্গীতের ইতিহাসে অন্যতম জনপ্রিয় গান। গানটির কথা লিখেছেন ও সুর করেছেন বাচ্চু নিজেই।

১৯৯৫ সালে তিনি বের করেন তৃতীয় একক অ্যালবাম ‘কষ্ট’। সর্বকালের সেরা একক অ্যালবামের একটি বলে অভিহিত করা হয় এটিকে। এই অ্যালবামের প্রায় সবগুলো গানই জনপ্রিয়তা পায়। এই অ্যালবামের ‘কষ্ট কাকে বলে’, ‘কষ্ট পেতে ভালোবাসি’, ‘অবাক হৃদয়’, ও ‘আমিও মানুষ’ গানগুলো মানুষের মুখে মুখে আলোড়ন তৈরি করে। আইয়ুব বাচ্চুর সর্বশেষ তথা ১০ম অ্যালবাম ‘জীবনের গল্প’ প্রকাশ হয় ২০১৫ সালে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

অন্যান্য সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com
x
error: কপি করা নিষেধ !
x
error: কপি করা নিষেধ !