Logo

মেয়েকে অপহরণ করে ধর্ষণ : বাবাকে পিটিয়ে আহত : ৬ আসামি রিমান্ডে

করেসপন্ডেন্ট,সুনামগঞ্জ / ৮৩ বার পঠিত
জাগো নিউজ : রবিবার, ১১ অক্টোবর, ২০২০

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় চাঞ্চল্যকর মেয়েকে ধর্ষণ ও অপহরণের প্রতিবাদ করায় বৃদ্ধ বাবাকে রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করার ঘটনার মামলার প্রধান আসামিসহ ৬জনের রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত। প্রধান আসামি শামীমকে ৭দিনের এবং অন্য ৫আসামিকে এক দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন সুনামগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত।

রবিবার(১১,১০,২০২০)দুপুরে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শুভদীপ পালের আদালতে মামলার প্রধান আসামি শামীম ১০দিনের এবং অন্য আসামি লিটন মিয়া,আকাই মিয়া,ইলিয়াছ মিয়া,আলম মিয়া ও কাজলের ৫দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ।
কোর্ট ইন্সপেক্টর সেলিম নেওয়াজ জানান,জগন্নাথপুরের চাঞ্চল্যকর ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃত প্রধান আসামি শামীমকে ৭দিন ও অন্য

আসামিদের একদিন করে রিমান্ড মঞ্জুরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
উল্লেখ্য,গত সোমবার(০৫,১০,২০২০) রাতে মেয়েকে ধর্ষণ ও অপহরণের প্রতিবাদ করায় বাবাকে জগন্নাথপুর উপজেলার পাইলগাঁও ইউনিয়নের আলীগঞ্জ বাজারের কলোনির ভাড়া বাসা থেকে ধরে নিয়ে গিয়ে রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করেন পার্শ্ববর্তী গুতগাঁও গ্রামের শামীম আহমদ ও তার লোকজন। সোমবার রাতেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নির্যাতিতা মেয়ের বাবা আনোয়ার আলীর আহত অবস্থায় বক্তব্যসহ একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

সেই ভিডিওতে মেয়ের বাবা বলেন ‘শামীমসহ কয়েকজন তাকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে লোহার রড দিয়ে বেধড়ক মারধর করে। তার মেয়েকে শামীমের কাছে না দেয়ায় এমন মারধর করেন। ভিডিওতে মেয়ের বাবা বলেন শামীম তার লোকজন দীর্ঘদিন ধরে আমার মেয়েকে উত্ত্যক্ত করত। শামীম প্রায়ই আমার মেয়েকে জোর করে উঠিয়ে নিয়ে যেতে তাকে নির্যাতন করতো,খারাপ কাজ করতো। গত ৩০সেপ্টেম্বর বিকেলে ওই বাসা থেকে মেয়ে তুলে নিয়ে যায় শামীম ও তার লোকজন।

মেয়ের খোঁজ জানতে চাইলে শামীম আহমদের লোকজন বাবাকে জোর করে শামীমের বাড়িতে ধরে নিয়ে যায় এবং লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে মারধর করে’। পরে স্থানীয় লোকজন ওই বৃদ্ধকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। এ ঘটনায় নির্যাতিতা মেয়ে বাদী হয়ে থানায় মামলা করলে ৬জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এঘটনার পর মঙ্গলবার সকালে নিখোঁজের ৬দিন পর মেয়েকে উদ্ধার করে পুলিশ।


অন্যান্য সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com
error: কপি করা নিষেধ !
error: কপি করা নিষেধ !