Logo

প্রেমিক-প্রেমিকাকে এক সাথে দেখে ফেলায় শিশু লিজাকে হত্যা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
জাগো নিউজ : বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২২

image_pdfimage_print

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় প্রেমিক-প্রেমিকাকে এক সাথে দেখে ফেলা এবং বিষয়টি প্রেমিকার মাকে জানিয়ে দেয়ার কারণে ৯ বছরের শিশু লিজাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয় । পরে তার লাশ বাঁশঝারে ফেলে রাখা হয়। হত্যাকাণ্ডের ৬ মাস পর ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। হত্যাকা-ের দায়ে স্বীকার করে ৩জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে।

বৃহস্পতিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে হবিগঞ্জ পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)-এর কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার মো. আল মামুন শিকদার।

তিনি জানান, গত বছরের ২১ জুলাই ঈদ-উল আযহার দিন সন্ধায় হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার গন্ধবপুর গ্রামের মো. সাগর আলীর মেয়ে লিজা আক্তারকে (৯) তার মা সেলিনা বেগম প্রয়োজনীয় কিছু দ্রব্য সামগ্রী আনতে গ্রামের পাশ্ববর্তী বাজারে পাঠান। কিন্তু রাত হয়ে গেলেও সে ফিরে আসেনি। বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুজি করেও তার সন্ধান পায়নি পরিবার। পরে ওইদিন রাতেই শিশু লিজার বাবা সাগর আলী মাধবপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

নিখোঁজের চারদিন পর গ্রামের পাশ^বর্তী বাঁশঝাড়ে লাকড়ি খুড়াতে গিয়ে লিজার অর্ধগলিত মরদেহ দেখতে পান এক নারী। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মরদেহ উদ্ধার করে। রাতে লিজার বাবা সাগর আলী অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামী করে মাধবপুর থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব পায় হবিগঞ্জ পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

পরে পিবিআইয়ের সদস্যরা তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঘটনার সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে গত ৭ ও ৯ ফেব্রুয়ারি অভিযান চালিয়ে একই গ্রামের বাহার উদ্দিন, খাদিজা আক্তার তাজরীন ও আমেনা খাতুনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবদ করে। পুলিশের জিজ্ঞাসবাদে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা প্রাথমিকভাবে স্বীকার করে তারা। পরে ৯ ফেব্রুয়ারি (বুধবার) হবিগঞ্জের সিনিয়র চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জুমুর সরকারের আদালতে আটককৃত বাহার ও তাজরীন হত্যকা-ের দায় স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

আসামীরা আদালতকে জানায়, গ্রেফতারকৃত তাজরীনের ছোটভাই তাকবীর হাসানের সাথে প্রতিবেশি কিশোরী শান্তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। সেই সুবাধে তারা দুজনের প্রায়ই দেখা করত।

হত্যাকা-ের কয়েকদিন আগে এক সন্ধ্যায় শান্ত ও তাকবির দেখা করার সময় শিশু লিজা তাদেরকে একসাথে দেখে ফেলে এবং বিষয়টি সে শান্তার মাকে জানিয়ে দেয়। এরপর শান্তার মা শান্তাকে গালি-গালাজ করেন এবং তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি ছিনিয়ে নেন। এতে তাদের প্রেমের সম্পর্ক নষ্ট হওয়ার পথে চলে যায়। রাগে ও ক্ষোভে লিজাকে শায়েস্তা করার সুযোগ খোঁজতে থাকেন শান্তা ও তাকবির। গত বছরের ২১ জুলাই ঈদ-উল আযহার দিন সন্ধ্যায় বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে লিজাকে চকলেটের লোভ দেখিয়ে একটি পরিত্যক্ত ঘরে নিয়ে যায় ঘাতকরা। এ সময় তারা লিজাকে গলা টিপে হত্যা করে বাঁশ ঝারে ফেলে রেখে আসে।

পুলিশ সুপার মো. আল মামুন শিকদার বলেন, হত্যাকাণ্ডের বেশ কয়েকজন ঘাতক অংশ নেয়। এর মধ্যে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেফতারে অভিযান চালানো হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

অন্যান্য সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com
x
error: কপি করা নিষেধ !
x
error: কপি করা নিষেধ !