Logo

নবীগঞ্জে মধ্যরাতে আ.লীগ বিএনপির সংঘর্ষ : বিএনপির কর্মীর নাড়িভুড়ি বেরিয়ে গেছে

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
জাগো নিউজ : শনিবার, জানুয়ারি ১৬, ২০২১

নবীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে হঠাৎ করেই মধ্যরাতে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে নবীগঞ্জ শহর। 

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থী একে অপরকে দোষারোপ করছেন।

শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২ টার দিকে পৌর এলাকার ৪নং ওয়ার্ডের গয়াহরি এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এঘটনায় বিএনপি ও আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন, চরগাও গ্রামের মন্নাফ মিয়ার পুত্র শফিক মিয়া চৌধুরী (৩২) ,আরশ মিয়ার পুত্র মিজান মিয়া(২৬), সুজাপুর গ্রামের হারুন মিয়ার পুত্র জাহিদ আহমেদ রুবেল(২৬),আওয়ামী লীগ প্রার্থী গোলাম রসুল রাহেল চৌধুরী । এর বাহিরেও আরও কয়েকজন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহতদের মধ্যে শফিক মিয়া চৌধুরীর অবস্থা আশংকাজনক বলে জানা গেছে।

আওয়ামী লীগ প্রার্থী গোলাম রসুল রাহেল চৌধুরীর অভিযোগ- বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ছাবির আহমদ চৌধুরী ও বিএনপির নেতাকর্মীরা গয়াহরি গ্রামে কালো টাকা বিলি করছেন বলে আমার কাছে খবর আসে,এ ঘটনা আমি প্রশাসনকে অবগত করি এবং গ্রামবাসী হাতেনাতে কয়েকজনকে আটকও করেন,পরে আমি ঘটনাস্থলে পৌঁছে গ্রামবাসী ও নেতাকর্মীদের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকার অনুরোধ করি। পরে আমি বাসায় আসার পথে গয়াহরি গ্রামের ভিতরেই চরগাঁও গ্রামের কয়েক শতাধিক লোকজন আমার গাড়িতে হামলা চালায় এবং আমার গাড়ি ভাংচুর করে, এসময় আমিসহ আমার বেশ কয়েকজন কর্মী আহত হয়। এমন নেক্কারজনক ঘটনার বিচার আমি পৌরবাসীর উপর ছেড়ে দিলাম।

অপর দিকে বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থী ছাবির আহমদ চৌধুরী জানান, আমি গয়াহরি সেন্টারে এজেন্ট ফরম বুঝিয়ে দিতে যাই, ওই সময় গয়াহরি গ্রামে রবিন্দ্র দাশের বাড়িতে সংক্রান্তির পিঠা খেতে আমন্ত্রণ জানান । পিঠা খেয়ে সেই বাড়ী থেকে বের হতেই আওয়ামীলীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী গোলাম রসুল চৌধুরী রাহেল এর ভাই শাহেল চৌধুরীর প্রথমে আমার গতিরোধ করে, এরপর আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রাহেল সাহেব আসেন এবং আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন, এ সময় রাহেল উত্তেজিত হয়ে আমার সাথে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে আমার দিকে তেরে আসেন রাহেল এবং আমাকে দাড়ালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করতে চাইলে আমার চাচাতো ভাই শফিক এগিয়ে আসলে তার পেটে আঘাতপ্রাপ্ত হয় এবং ভুড়ি বেরিয়ে যায়। তাকে আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এমন ঘটনা নবীগঞ্জের জন্য কলঙ্কজনক আখ্যায়িত করে তিনি বলেন আজ ভোটাররা ভোটাধিকার প্রয়োগ করে এর শক্ত জবাব দিবেন।

এদিকে এঘটনায় নবীগঞ্জ পৌর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল আলীম ইয়াছিনীসহ ৪জনকে আটক করেছে পুলিশ।

নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আজিজুর রহমান বলেন, দু পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যাই এবং ৪ জনকে আটক করি, বিস্তারিত পরে বলা যাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্যান্য সংবাদ
ThemeCreated By ThemesDealer.Com
error: কপি করা নিষেধ !
error: কপি করা নিষেধ !