Logo
শিরোনাম :
বাউসা ইউনিয়ন পরিষদকে সৌদি দূতাবাস বানিয়ে অভিনব প্রতারণা ॥ আটক ৩ বাহুবলে গাছ খাওয়ায় ছাগল আটক, এমপি কল দেয়ার পরও ছাড়েনি পুলিশ কানাডায় সড়ক দুর্ঘটনায় বীর মুক্তিযোদ্ধা সুরঞ্জন দাশ স্ত্রীসহ নিহত গ্রিসে বাংলাদেশ দূতাবাসে বঙ্গমাতা ও শেখ কামাল এর জন্মবার্ষিকী পালন নবীগঞ্জে মায়ের স্বপ্ন পূরণে হেলিকপ্টারে চড়ে বরের বাড়ি গেলেন সুরভী খোঁজ মিলছে না সিলেট ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সভাপতির এবার মাল্টার ভিসা মিলবে ঢাকা থেকেই! গ্রিসে ১৫ হাজার অনিয়মিত বাংলাদেশি যেভাবে পাবেন বৈধতা! নবীগঞ্জ-হবিগঞ্জ রুটে বাস চলাচল বন্ধ, যাত্রীদের ভোগান্তি : চালু হবে কবে ! তুর্কি থেকে গ্রিসে অনুপ্রবেশ: দুর্ঘটনায় সিলেটের কওছর মেম্বার নিহত, আহত ৩

‘এইখানে আমার ঘর ছিল’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
জাগো নিউজ : বৃহস্পতিবার, জুন ৩০, ২০২২

‘এইখানে আমার ঘর ছিল’- একটি পাকা ভিটের ওপর দাঁড়িয়ে বললেন বৃদ্ধ পূর্ণ দাস। যদিও এখানে এখন ঘরের কোনো অস্তিত্ব নেই। ভিটেটিই আছে কেবল। আশপাশে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা পুরোনো টিন আর বাঁশ এখানে একদা ঘর থাকার কথা জানান দিচ্ছে।

গত ১৮ জুন ঢলে ভাসিয়ে নিয়ে গেছে পূর্ণ দাসের মাটির ঘর। পেশায় চা শ্রমিক তিনি। সিলেট নগর লাগোয়া বালুচর এলাকার দলদলি চা বাগানেই কাজ করেন।

বাগান থেকে ঢলের পানি নেমে গেছে ১৮ জুনই। তবু এখন পর্যন্ত ঘর মেরামত করতে পারেননি পূর্ণ। তিনি বলেন, ‘হামরা গরিব মানুষ বাবু। ভাতই খাইতে পারি না। ঘর বানাইমু কী দিয়া!’ ১৫ জুন থেকে সিলেটে বন্যা দেখা দেয়, যা পরে স্মরণকালের সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যায় রূপ নেয়। ১৮ জুন ব্যাপক বৃষ্টি হয় এই অঞ্চলে। ওই দিনই তলিয়ে যায় প্রায় পুরো সিলেট নগর। চা বাগানগুলো টিলাশ্রেণির ভূমি। অপেক্ষাকৃত উঁচু এলাকা। তবে ১৮ জুনের বৃষ্টিতে তলিয়ে যায় দলদলি চা বাগানও। ঢল আর টিলাধসে ভেঙে যায় এই বাগানের শ্রমিকদের অন্তত ২২টি ঘর। ক্ষতিগ্রস্ত হয় আরও অন্তত ২০টি বসতি।

সেই দিনের ভয়ংকর স্মৃতি বর্ণনা করে প্রবীণ চা শ্রমিক জয়ন্ত দাস বলেন, ‘সকালে টিলা থেকে ঢল নামতে শুরু করে। চোখের সামনে খড়কুটোর মতো আমার ঘর ভাসিয়ে নিয়ে যায়। অনেক ঘরের চালও সেদিন পানির নিচে চলে গিয়েছিল। বাগানের ভেতরে পানির বড় বড় ঢেউ ছিল। আর ধসে পড়ছিল বাগানের ভেতরের টিলাগুলোও।’ তিনি বলেন, ‘জীবনে এমন পানি কখনও দেখিনি। বাগানে কখনও পানি ওঠেনি।’ সিলেটে বন্যাকবলিতদের সহায়তায় সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ চলছে। প্রশাসনের লোকজন বলছেন, পর্যাপ্ত ত্রাণের মজুত রয়েছে। আর সরকারের চেয়েও বেসরকারি উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ করা হচ্ছে কয়েক গুণ বেশি। প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শতাধিক ট্রাক ত্রাণ নিয়ে আসছে সিলেটে।

তবু দলদলি বাগানে এখনও কোনো ত্রাণ পৌঁছেনি বলে জানিয়েছেন এই বাগানের শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মিন্টু দাস। না সরকারি উদ্যোগে, না বেসরকারি উদ্যোগে। ঘরবাড়ি হারানো এখানকার দরিদ্র শ্রমিকরা এখন থাকছেন আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে আশ্রিত হয়ে।

বাগানের সবজি বাড়ি এলাকার রাজকুমার দাসের ঘর একেবারে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে ঝড়ে। ভিটের ওপর মুখ থুবড়ে পড়ে আছে টিন, বাঁশ, কাঠসহ ঘরের সরঞ্জামাদি। ঘর ভাঙার ১১ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনও সংস্কারকাজ শুরু করতে পারেননি রাজকুমার। তিনি বলেন, ‘আমরা ১২০ টাকা মজুরিতে কাম করি। ভাত খুইমু না ঘর বানাইমু?’

ভাত খাবেন না ঘর বানাবেন- এমন দোটানায় বাগানটির ক্ষতিগ্রস্ত সব শ্রমিকই। তবে এ বিষয়টির সমাধান দিতে বাগানে এখনও আসেননি দায়িত্বশীলদের কেউ। এমনকি বাগান কর্তৃপক্ষও না।

ঘর হারানো আরেক শ্রমিক মনি দাস বলেন, ‘বাগান কর্তৃপক্ষ বলছে, ঘর ঠিক করে দেবে। কিন্তু ১০ দিনেও দেয়নি। এখন আমরা থাকব কোথায়? ঘর ছাড়া তো এক দিনও থাকা যায় না।’

শিপলা দাস নামে ঘর হারানো আরেক নারী বলেন, ‘আমরা গরিব চা শ্রমিক। আমাদের খোঁজ কেউ করে না। কেবল মেম্বার (ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য) একদিন এসে দেখে গিয়েছিল। আর কেউ দেখতেও আসেনি। কেউ আমাদের ত্রাণও দেয়নি।’

১৮ জুনের টানা বৃষ্টিতে টিলা ধসে পড়ে সুক্রু দাসের ঘরে। এতে ঘর গুঁড়িয়ে যাওয়ার পাশাপাশি হাত ভেঙেছে তার। ঘর হারানো শুক্রু এখন মাকে নিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন পার্শ্ববর্তী মামার বাড়িতে।

প্লাস্টার করা হাত গলায় ঝুলিয়ে শুক্র দাস বলেন, ‘আমাদের এখন পর্যন্ত কেউ কোনো সহায়তা দেয়নি। কেউ দেখতেও আসেনি। সব হারিয়ে এখন অন্যের বাড়িতে আশ্রিত।’

মঙ্গলবার বিকেলে দলদলি চা বাগানে গিয়ে দেখা যায়, বাগানের শ্রমিক বস্তি এলাকাটি প্রায় লন্ডভন্ড। অনেক ঘরের পুরোটাই ভেঙে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বেশির ভাগ বাড়ি। টিলাধসে অনেক সড়ক যোগাযোগও বন্ধ হয়ে গেছে।

ঢলে ঘর তলিয়ে যাওয়া ও টিলাধসের কারণে ১৮ জুন বাগানের প্রায় সব শ্রমিক রাত কাটিয়েছেন পাতিঘর হিসেবে পরিচিত পাতা সংরক্ষণের ঘরে। বৃষ্টিতে তলিয়ে থাকায় এই বাগানে সাত দিন পাতা উত্তোলনও বন্ধ ছিল বলে জানালেন শ্রমিকরা। সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে ঘর হারানো চা শ্রমিক বিপ্লব দাস বলেন, ‘বালা করি ছবি তুলিয়া নেইন, আমরারে ঘরবাড়ি বানানির একটা ব্যবস্থা করিয়া দেইন।’ ১৮ জুনের স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, ‘ইলা মেগ (এমন বৃষ্টি) জীবনেও দেখছি না।’

এই বাগানের বাসিন্দা ড্যানি নায়েক গাড়ি চালানোর কাজ করেন। বাগানে এখনও ত্রাণ না পৌঁছানোর কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বাগান তো টিলা এলাকা। তাই সবাই হয়তো মনে করছে, এখানে পানি উঠবে না। তাই এদিকে কেউ আসছে না। আমাদের দুর্দশার কথা পৌঁছানোর মতোও কেউ নেই।’

দলদলি চা বাগানের অবস্থান সিলেট সদর উপজেলার টুকেরবাজার ইউনিয়নে। এই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদ আহমদ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বলেন, ‘আমার ইউনিয়নে প্রায় ১০ হাজার পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত। অথচ এখন পর্যন্ত উপজেলা প্রশাসন থেকে ১৩ টন ও সিটি করপোরেশন থেকে পাঁচ টন চাল বরাদ্দ পেয়েছি। এই সামান্য ত্রাণ দিয়ে বিপুলসংখ্যক মানুষের চাহিদা মেটানো অসম্ভব।’

দলদলি চা বাগানে এখনও ত্রাণ না পৌঁছানোর কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, ‘এই বাগানের শ্রমিকদের জন্য এক টন চাল রেখেছি। আজকালের মধ্যে তা পৌঁছানো হবে।’

তবে দলদলি চা বাগানে এখনও ত্রাণ না পৌঁছানোর তথ্য জানেন না বলে জানিয়েছেন সিলেট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নুসরাত আজমেরী হক। তথ্যটি জানানোর জন্য এ প্রতিবেদককে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের কাছে পর্যাপ্ত ত্রাণ আছে। বেসরকারি পর্যায়েও অনেক ত্রাণ আসছে। দলদলি চা বাগানে কেন এখনও ত্রাণ পৌঁছেনি তা আমি খোঁজ নিয়ে দেখব।’

ইউএনও আরও বলেন, ‘বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘরের তালিকা করা হচ্ছে। সরকার থেকে এই বাড়িঘর সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হবে।’

রাষ্ট্রায়ত্ত ন্যাশনাল চা কোম্পানির মালিকানাধীন লাক্কাতুরা চা বাগানের একটি ফাঁড়ি বাগান দলদলি। এই বাগানের দায়িত্বে থাকা লাক্কাতুরা চা বাগানের সহকারী ব্যবস্থাপক জিলকর হোসেনের কাছে শ্রমিকদের ঘরবাড়ি সংস্কারের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বাগান ব্যবস্থাপক এ কে এম এমদাদুল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেন।

তবে ব্যবস্থাপক এমদাদুল হকের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

অন্যান্য সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com
x
error: কপি করা নিষেধ !
x
error: কপি করা নিষেধ !