Logo
শিরোনাম :
খুলনায় নিখোঁজ সেই রহিমা বেগমকে জীবিত উদ্ধার সবুজকুঁড়ি শিল্পী গোষ্ঠীর দুই ইসলামী সাংস্কৃতিক যোদ্ধার প্রবাস গমন গ্রিসে বাংলাদেশি শিল্পীদের চিত্র প্রদর্শনী কালিয়ারভাঙ্গা ডিজিটাল সেন্টারে হামলার ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ নবীগঞ্জে পিতার লাশ দাফন করে এসএসসি পরীক্ষা দিল রুহান নিরাপদ ও স্বাভাবিক প্রাতিষ্ঠানিক প্রসবে দেশে ষষ্ঠ স্থানে হবিগঞ্জ নবীগঞ্জে আ.লীগ-বিএনপির পাল্টাপাল্টি সমাবেশ : ১৪৪ ধারা জারি নবীগঞ্জে গ্রীনলাইন-শ্যামলী পরিবহনের বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ ॥ আহত অর্ধশতাধিক নবীগঞ্জে নিখোঁজের ৩ দিন পর নদীতে পাওয়া গেলো শিশুর মরদেহ সাংবাদিক সুলতানের উপর হামলাকারীদের গ্রেফতার করতে ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম

‘‘আমার বাবা কবরে খুনি কেন বাহিরে’’

ছনি চৌধুরী
জাগো নিউজ : বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২১

নবীগঞ্জ উপজেলার বড় ভাকৈর (পূর্ব) ইউনিয়নের ছোট ভাকৈর গ্রামের আলমগীর মিয়া নিহতের ঘটনায় জড়িতের গ্রেফতার পূর্বক ফাঁসির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নবীগঞ্জ-ইনাতগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের কাজিরবাজার এলাকায় এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন- বড় ভাকৈর (পূর্ব) ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আশিক মিয়া, সাবেক চেয়ারম্যান আক্তার হোসেন ছোবা, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ সিলেট বিভাগের আহবায়ক মো. আব্দুল্লাহ মিয়া, এডভোকেট শাহিদ মিয়া, জাকির মিয়া, শহিদুল ইসলাম, এখলাছুর রহমান আজাদ, ইয়াকুব মিয়া, মুরাদ আহমদ, বিলাল আহমদসহ নিহত আলমগীরের মা রাবেয়া বেগম, স্ত্রী মুর্শেদা বেগম ও তিন কন্যা সন্তানসহ আরও অনেকেই।

মানববন্ধনে বক্তারা দাবী করেন- আলমগীর মিয়াকে অত্যান্ত সু-পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে তার মৃতদেহ নবীগঞ্জ-ইনাতগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কে ফেলে রাখা হয়। সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে অতিদ্রুত সময়ের মধ্যে আসামীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার দাবী জানান বক্তারা। একই সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ফাঁসির দাবী জানান।

মানববন্ধনে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার সহস্রাধিক জনসাধারণ অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে নিহত আলমগীরের ৩ সন্তান ‘‘আমার বাবা কবরে খুনি কেন বাহিরে’’ সম্বলিত প্লে কার্ড হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে পিতা হত্যার বিচার দাবী করেন। এসময় হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণ হয়।

উল্লেখ্য, গত (২০ জানুয়ারি) দিবাগত রাতে নবীগঞ্জ-ইনাতগঞ্জ সড়কের নিজ আগনা গ্রামের নিকটে আঞ্চলিক সড়কের উপরে আলমগীর মিয়ার রক্তাক্ত মৃতদেহ উদ্ধার করে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ। এঘটনার পর থেকে আলমগীর মিয়াকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবী করে আসছে তাঁর পরিবার ও এলাকাবাসী । আলমগীর মিয়া বড় ভাকৈর (পূর্ব) ইউনিয়নের ছোট ভাকৈর গ্রামের মৃত আবুল কালাম আজাদের পুত্র।

নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজিজুর রহমান বলেন- বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখা হচ্ছে, আশা করি অচিরেই মূল রহস্য উদঘাটন হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

অন্যান্য সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com
x
error: কপি করা নিষেধ !
x
error: কপি করা নিষেধ !