Logo
শিরোনাম :
পাঁচ হাজার বন্যার্তদের মুখে খাবার তোলে দিল ‘ইউনাইটেড নবীগঞ্জ’ বাংলাদেশে স্বপ্নের পদ্মা সেতু’র উদ্বোধন, গ্রিসে উদযাপন করল দূতাবাস নবীগঞ্জে বন্যার পানিতে ভেসে আসলো যুবকের লাশ পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে নবীগঞ্জ থানার আনন্দ র‌্যালী শ্রেষ্ঠ হিসেবে শুদ্ধাচার পুরস্কারে জন্য মনোনীত হলেন নবীগঞ্জের ইউএনও শেখ মহিউদ্দিন নবীগঞ্জে বন্যার্তদের মাঝে আব্দুর রহমান ফাউন্ডেশনের আর্থিক সহায়তা প্রদান দেশে বন্যায় মানুষ কষ্টে আছে : সরকার পদ্মাসেতু উদ্বোধনে আমোদ-ফুর্তিতে ব্যস্ত-ড. রেজা কিবরিয়া ‘শুকনো জায়গায় মাকে কবর দিও’ নবীগঞ্জে উল্টে গেলো বন্যার্তদের খাদ্যবাহী ট্রাক নবীগঞ্জে ভয়াবহ রূপ নিয়েছে বন্যা : শতাধিক গ্রাম প্লাবিত : সবাইকে এগিয়ে আসার আহবান

আইনজীবী পেলেন এস আই আকবর !

করেসপন্ডেন্ট,সিলেট
জাগো নিউজ : বৃহস্পতিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০২০

অবশেষে নিজের পক্ষে আইনজীবী পেলেন পুলিশের বহিষ্কৃত এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়া। সিলেটের পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে রায়হান আহমদ হত্যা মামলার প্রধান এই অভিযুক্তের পক্ষে লড়তে শুরুতে সিলেটের কোনো আইনজীবী রাজি না হলেও শেষ পর্যন্ত আইনজীবী খুঁজে পেয়েছেন তিনি।

আকবরের পক্ষে আদালতে আইনি লড়াইয়ে যোগ দিবেন সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য অ্যাডভোকেট মো. মিসবাউর রহমান আলম। যদিও এরআগে সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিলো, আকবরের পক্ষে সিলেটের কোনো আইনজীবী আদালতে দাঁড়াবেন না। রায়হানের বাড়িতে গিয়েও এমনটি জানিয়েছিলেন সমিতির নেতারা।

আকবরের পক্ষে আইনি লড়াইয়ে সম্মত হওয়া প্রসঙ্গে এডভোকেট মো. মিসবাউর রহমান আলম বলেন, আসামিপক্ষে আইনজীবী না থাকলে তো বিচার প্রক্রিয়াই আটকে যাবে। আকবর অভিযুক্ত হলেও সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে সে অপরাধী সাব্যস্ত হবে। এর আগে আইনি সহায়তা পাওয়া তার সাংবিধানিক অধিকার। গত ১০ ডিসেম্বর আকবরের পক্ষে তিনি ওকালতনামা জমা দিয়েছেন বলে জানান মিসবাউর।

গত ১১ অক্টোবর সকালে মারা যান নগরীর আখালিয়া বাসিন্দা রায়হান আহমদ (৩৪)। বন্দরবাজার ফাঁড়িতে ধরে এনে নির্যাতন চালিয়ে তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে। ওই রাতেই হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনে মামলা করেন রায়হানের স্ত্রী তামান্না আক্তার।

মামলার পর মহানগর পুলিশের একটি অনুসন্ধান কমিটি তদন্ত করে নির্যাতনের সত্যতা পায়। এই ফাঁড়ির ইনচার্জের দায়িত্বে থাকা উপ-পরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভূঁইয়াসহ চারজনকে ১২ অক্টোবর সাময়িক বরখাস্ত ও তিনজনকে প্রত্যাহার করা হয়। ১৩ অক্টোবর আকবর পুলিশি হেফাজত থেকে পালিয়ে যান বন্দরবাজার থানার ইনচার্জের দায়িত্বে থাকা আকবর হোসেন ভূঁইয়া।

গত ৯ নভেম্বর সিলেটের কানাইঘাট সীমান্ত থেকে আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়। ভারতে পালানোর সময় তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে পুলিশ দাবি করে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্যান্য সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com
x
error: কপি করা নিষেধ !
x
error: কপি করা নিষেধ !